ফেনীতে দ্বন্দ্বে ঘরছাড়া, পথহারা আওয়ামীলীগ। কোন পথে রাজনীতি?

Photo-Collage_20180527_094327562_1.jpg

জাহাংগীর আলম (শুভ)
ফেনীতে আওয়ামীলীগে দ্বন্দ্ব,সংঘাত,কোন্দল যেন পিছু ছাড়ছে না।বলা চলে ঘরছাড়া,পথহারা আ:লীগ
নিজেরা নিজেদেরই দলের লোকের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে হাজার ছাএলীগ,যুবলীগ,আ:লীগের কর্মীরা ঘরছাড়া। কোন্দলের কারনে অনেকে প্রান বাঁচাতে প্রবাসী,চাকুরী, কেউ মামলা মাথায় নিয়ে ফেরারী।
এমপি নিজাম হাজারীর প্রতিপক্ষ জয়নাল হাজারীর,তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী,সাবেক জেলা ছাএলীগ ও যুবলীগ সভাপতি এম আযহারুল হক আরজু।
নিজাম হাজারীর মামলা প্রক্রিয়ায় নাস্তা নাবুদ এই ৩ নেতার অনুসারীরা। সর্বশেষ এিমুখীচাপে এখন নিজাম হাজারী।কর্মীরা কার পিছনে রাজনীতি করবে? কোন দিক নির্দেশনা পাচ্ছে না। দলীয় মামলায় গ্রেফতার ভয়ে ঘর ছাড়া আবার সঠিক নেতৃত্বের অভাবে পথহারা বহুকর্মী।আওয়ামীলীগ মোকাবেলায় বিএনপির দরকার নেই।তাদের কোন্দল যথেষ্ট বলে মত রাজনৈতিক বোদ্ধাদের।

কর্মীদের তথ্য,নানা দিকবিবেচনা করে দেখা যায়:-২০১৯ সালে ফেনী ২ আসনে নৌকার টিকেট প্রাপ্তির দাবীদার
৪জন হলো:১। ৩ বারের সাবেক এমপি জয়নাল হাজারী ,২। তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌ:৩। নিজাম হাজারী এমপি ৪। আযহারুল হক আরজু।
আযহারুল হক আরজুকে,নিজাম হাজারী নানা হয়রানী ,মামলা দিয়ে গ্রাম ছাড়া করতে পারছেনা।যেখানে প্রচুর দলীয় কর্মী থাকার পরেও জয়লাল হাজারীর মতো নেতা ফেনী আসার সাহস করেনি। সাবেক জেলা ছাএলীগ যুবলীগ সভাপতি আরজু দলীয় কর্মীদের পাশে থেকে,চষে বেড়াচ্ছেন এ প্রান্ত থেকে সে প্রান্ত।ফলে কর্মীদের মাঝে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন আরজু।তাই টিকেট প্রাপ্তির লিষ্টে আরজুর নামটি উঠে যায়।

টাইমসবিডি নিউজকে জয়নাল হাজারী বলেছেেন:-,তিনি আর নির্বাচন করবেননা,নেএী চাইলে ও করবেননা। এবং তিনি কাউকে সমর্থন করবেননা ? তথ্যউপদেষ্টা ইকবাল সোবহানকে সমর্থনের খবর গনমাধ্যমে প্রকাশিত হলে ও তিনি তাঁর বক্তব্য থেকে সরে এলেন। কাউকে সমর্থন না নয়,বলে ও ফেনী ৩ আসনে অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা কে সমর্থন দিলেন ফেসবুক লাইভে। এ বিষয়ে ডাক্তার পাড়া এলাকার যুবলীগ নেতা রিপন খান বলেন :-যার নিজের এলাকায় আসার ক্ষমতানেই,তার আবার সমর্থন!বাইছা হাগল(পাগল)অইছে।
একটি সূএে প্রকাশ, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহানকে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার আভাষ দিলে ও রাজনীতি করার মতো কোন কর্মী বাহিনী নেই ,এমন রির্পোট প্রদান করে সরকারের গোয়েন্দা সংস্থা।

নিজাম হাজারীর অনেকগুলো কারনে অনিশ্চিত টিকেট পাওয়া। ১/এমপিত্ব নিয়ে মামলা,২/একরাম হত্যাকান্ড ৩/চাঁদাবাজীর রেকর্ড ৪/ নিজদলীয় কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা ৫/ তার বিরুদ্ধে দুদকের দায়েরকৃত অভিযোগে প্রধানমন্ত্রী নানা কারনে ক্ষুব্দ।
আযহারুল হক আরজুর বিরুদ্ধে তেমন কোন অভিযোগ নেই,তবে দলীয় শৃঙ্খলা ভংগের অভিযোগ রয়েছে।বিশেষ করে,নিজাম হাজারীর বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলনে খালেদার গাড়ীবহরে হামলার ঘটনায়,নিজাম হাজারীজড়িত বলে দাবীকে বিএনপি লুফে নেয়। যা গনমাধ্যমে প্রকাশ পায়।
জয়নাল হাজারীর সরে যাওয়া,নিজাম হাজারীর বিরুদ্ধে অভিযোগের কারনে ১০০% নিশ্চিত তিনি পাবেননা।
বাকি ইকবাল সোবহান ও আরজু। জয়নাল হাজারীর অনুসারী আরজু যাচ্ছেনা তার কাছে। সূএ জানায়:-ইকবাল সোবহানকে সামনে রেখেই পথ চলছে আরজু।তাকে বেকআপ দিয়ে চলেছেন ইকবাল সোবহান। তবে জয়নাল হাজারী আরজুকে নিষেধ করেননি সূএে প্রকাশ।

ইকবাল সোবহানকে চৌ:মাঠ পর্যায় তেমন গ্রহন যোগ্যতা
নেই।মাঠ কর্মীদের অভিযোগ ক্ষমতা থাকার পরে ও কর্মী দের কোন কাজই তিনি করেননি।এখন ইকবাল সোবহান টিকেট পেলে মানুষের সামনে যেতে হলে জয়নাল হাজারী ও আরজুর কাধে ভর দিতে হবে।
সাধারন কর্মীদের ধারনা আরজুই টিকেট পাবে। বিএনপির আমলে কারাগারে আটক থেকে ধর্মপুর ইউনিয়ন চেয়ার ম্যান নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। ৪ বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন জনপ্রিয় বলেই। টিকেট পেলে ১ম কাজ কোনটি করবেন? নেএী দিলে আমি সর্ব প্রথম চাঁদাবাজ মুক্তফেনী তাঁকে উপহার দিবো।বিএনপির গাজী মানিকের জনপ্রিয়তা
এবং তার সাথে লড়তে পথহারা আওয়ামীলীগের কোন নেতাকে নির্বাচিত করেন নেএী।সে দিকে তাকিয়ে ফেনীর সাধারন কর্মীরা।

Comments

comments

Top