বনশ্রী এলাকায় গৃহকর্মীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ভাংচুর

FB_IMG_15020018421505844.jpg

রাজধানীর বনশ্রী এলাকায় গৃহকর্মী লাইলী বেগমের (২৫) রহস্যজনক মৃত্যু, হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় দুটি মামলা হয়েছে। এ মামলার পর গৃহকর্ত্রী শাহনাজকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (৫ আগস্ট) ভোরে বনশ্রী বি-ব্লকের ৪ নম্বর রোডের নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে শুক্রবার (৪ আগস্ট) রাত ১১টার দিকে লাইলীর স্বামী নজরুল ইসলামের বড় ভাই (ভাশুর) শহীদুল ইসলাম বাদী হয়ে গৃহকর্ত্রী শাহনাজসহ তিন জনকে আসামি করে হত্যা মামলাটি দায়ের করেন। পরে হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় আরেকটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলার অপর দুইজন হচ্ছেন ওই বাড়ির মালিক মুন্সী মইনউদ্দিন ও বাড়ির দারোয়ান তোফাজ্জল।

খিলগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইনুল ইসলাম শনিবার সকালে গনমাধ্যমকে বলেন, গতকাল শুক্রবার রাত ১১টার দিকে একটি হত্যা মামলা ও হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় আরেকটি মামলা হয়। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার ভোরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহকর্ত্রীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় এ পর্যন্ত মোট ৩ জনকে আটক করা হয়েছে।

শুক্রবার বনশ্রীর বি ব্লকের ৪ নম্বর সড়কে একটি বাসায় গৃহকর্মী লাইলী বেগমের (২৫) রহস্যজনক মৃত্যুকে কেন্দ্র করে এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। লাইলীকে হত্যার অভিযোগ এনে তাঁর পরিবার ও এলাকার বিক্ষুব্ধ লোকজন ওই বাড়িতে হামলা চালায় ও সড়কে গাড়ি ভাঙচুর করে। দফায় দফায় পুলিশের সঙ্গে স্থানীয়দের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া চলে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক দফা ফাঁকা গুলি ছোড়ে। রাত ১০টার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।

লাইলীর জা শাহনাজ পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন, লাইলীকে হত্যা করা হয়েছে। গৃহকর্তা মইনুদ্দিন বলছেন, লাইলী বাসায় কাজ করতে আসার পর বাড়ির একটি ঘরে ঢুকে দরজা ভেতর থেকে বন্ধ করে দেন। পরে দরজার ছিটকিনি ভেঙে ঘরের ভেতরে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় লাইলীকে পাওয়া যায়।

Comments

comments

Top