ফলোআপ :: চট্টগ্রামে মাদক ব্যবসায়ী টিপুর হুমকিতে প্রতিবেদক।

1501529280591-768x768_2.jpg

চট্টগ্রামে টিএন্ডটি কলোনীর মাদক ব্যবসায়ী টিপু
প্রতিবেদন প্রকাশের পর হত্যার হুমকি

টাইমস ডেক্স:: আগ্রাবাদ এলাকার টিএন্ডটি কলোনীর টিপুর মাদক সিন্ডিকেট নিয়ে অনুসন্ধানি রির্পোট প্রকাশিত হওয়ার পর টনক নরে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার।

অন্যদিকে এই প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর মাদক ব্যবসায়ী টিপু প্রতিবেদকের মোবাইলে ফোন করে এবং ম্যাসেজ দিয়ে নানা রকম অশ্রাব্য গালাগাল এবং ম্যাসেজ দিয়ে প্রতিবেদকে প্রাণনাশের হুমকি এবং বিভিন্নভাবে প্রতিবেদককে ম্যানেজ করার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়।

মাদক সিন্ডিকেটের নিয়ন্ত্রণকারী টিপু ১লা আগষ্ট সন্ধ্যা ৬টা ৮মি: থেকে যথাক্রমে রাত ৯.৭মিঃ ৯.১১/৯.১৪/মিঃ এবং ২রা আগস্ট দুপুর ১টা ৫৬মি: এবং ৩রা আগস্ট সকাল ১০.২২ /১.৩০/৩.৩১/৩.৫৬ মি: প্রতিবেদকের মোবাইলে ম্যাসেজ দিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে চলেছেন।

ব্যাপারীপাড়া শিশু কবরস্হানের সামনে একটি বিল্ডিং
৬ষ্ঠ তলা ভাড়া নিয়েছে নিরাপদ মাদক রাখতে।

তাদের মাদক সিন্ডিকেট মিটিং, মাদকের চালান নিরাপদে রাখার জন্য ব্যাপারী পাড়া শিশু কবরস্হানের সামনে একটি বিল্ডিংয়ের ৬ তলায়,একটি বাসা ভাড়া নেয়। সেখান থেকে টিপু বর্তমানে মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করছে।
এছাড়া ও সে নয়াবাজার ফকির কলোনী তার নিজ বাসা,এবং টিএন্ডটি কলোনীতে মাদকের মওজুদ গড়ে তুলে। টিপুর ছোট ভাই রিটুকে সে বিভিন্ন তথ্য,প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ,এবং টিপুর মামলা পরিচালনার জন্য ব্যবহার করে।গত সপ্তাহে টিপুর ভাই রিটুকে ডবলমুরিং থানায় একটি মামলায় গ্রেফতার করে কোটে চালান দেয় পুলিশ,ঐ মামলায় টিপু ও আসামী। ব্যাংকক সিংগাপুর মার্কেটে দোকান দখলের একটি অভিযোগ ও ডবলমুরিং থানার এস আই কাওসারের নিকট তদন্তনাধীন রয়েছে।এছাড়া তার বিরুদ্ধে পূর্বের ফেনসিডিল বিক্রি,ইয়াবা ব্যবসা জনিত মামলা রয়েছে,যা আদালতে বিচারাধীন।

টিপুর মাদক সিন্ডিকেট নামে প্রতিবেদন প্রকাশের পর টিপু বর্তমানে সর্তক হয়ে চলাচল করছে।
অন্যদিকে কাজলের ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান।কাজল মুলত শিক্ষিত ছেলে, ঘটনা চক্রে টিপুর সাথে তার এক বন্ধুর মাধ্যমে পরিচয় হয়।কাজল ইন্টারটেক সর্ফট লাইনর্স নামক একটি কোম্পানীতে
চাকুরী করত,টিপুর সাথে পরিচয়ের পর
কাজলের ব্রেইন ওয়াশ করে টিপু। কাজল প্রতিদিন অফিসে যাওয়ার নাম করে টিএন্ডটি কলোনীর টিপুর ভাড়া করা ৪তলা একটি বাসায় বসতো। টিপু নানা খাত দেখিয়ে কাজলের মোটা অংকের টাকা আত্মসাৎ করে।

এই ব্যাপারে সিন্ডিকেটের সাথে কাজলের নাম আসাতে কাজল তার মোবাইল ফোন থেকে ম্যাসেজ করে প্রতিবেদককে জানায়। টিপুর সাথে পরিচয় ছিল তার জীবনের বড় ভুল, টিপুর সম্পর্কে না জেনে তার সাথে
চলা ফেরা করে। অনেক বড় ভুল করেছে সে।

অন্য দিকে প্রতিবেদনটি দেখে স্বপ্না নামীয় এক তরুনী টিপুর হাতে ব্লাকমেইল হওয়ার কথা বর্ণনা করতে গিয়ে কান্নায় ভেংগে পরেন। তিনি জানান, টিপু তার সাথে প্রেমের অভিনয় করে তার দূর্বলতার সুযোগ নেয়। এবং সে কথা না শুনলে তার ছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে তাকে দিয়ে ইয়াবার চালান আনা নেওয়া করিয়েছে বেশ ক বার। এক পর্যায় মেয়েটি উপায় না দেখে অন্য একটি ছেলেকে বিয়ে করে সংসার আরম্ভ করলে ও টিপু এখনো তাকে হুমকি অব্যাহত রাখে।

কাজলের ব্যাপারে সে জানায়, কাজলকে টিপু হয়তো কোন কারনে জিম্মি করে এ কাজ করতে বাধ্য করে।
তবে টিপু খুবই ধুরন্ধর টাইপের লোক। সে নানা অপর্কম করে গা ঢাকা দেয় তার গ্রামের বাড়ী ফেণীতে। কাজলকে সে পরিস্হিতির স্বীকার বলে জানায়।

একটি সূএ জানায়, টিপু এখন নানা মানুষকে ধরেছে তার ব্যাপারে ডবলমুড়িং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহিউদ্দিন সেলিমকে বুঝানোর জন্য। তার বিরুদ্ধে যা লিখা হয়েছে সব মিথ্যা। টিপু বর্তমানে
হালিশহর থানাধীন নয়াবাজার ফকির পাড়া এলাকায় বসবাস করছে। হালিশহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে ডবলমুড়িং থানার কর্তব্যরত ডিউটি অফিসার জানান।টিপুদের এই সিন্ডিকেটকে ধরার চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

((বি:দ্র পরিস্হিতির স্বীকার হওয়া কাউকে অপরাধী বলতে আমরা রাজী নই।কাজলের ব্যাপারে অনুসন্ধানে জানা যায় যে, সে টিপুর সম্পর্কে না জেনে চলাফেরা করেছে।এবং সে তার ভুল বুঝতে পেরেছে মর্মে সত্যতা স্বীকার করায় এবং তার কথার সত্যতা পাওয়া যায়।তাই তার ছবি প্রত্যাহার করা হলো))

Comments

comments

Top