কয়েক হাজার কর্মী ছাঁটাই করবে মাইক্রোসফট

Microsoft-520170704161421.jpg

মাইক্রোসফটের ভেতর বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে। সংস্থায় কর্মরত হাজার হাজার তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী ছাঁটাই হতে পারে। চলতি সপ্তাহের মধ্যেই এই সংক্রান্ত ঘোষণা হতে পারে।

প্রযুক্তি সংক্রান্ত ‘গিকওয়্যার’ওয়েবসাইটের দাবি, বাক্সে করে সফ্টওয়্যার পৌঁছে দেয়ার তত্ত্বে এখন আর আস্থা নেই মাইক্রোসফটের। গত বছর থেকেই তাদের সফ্টওয়্যার বিক্রি হার ২৬ শতাংশ কমে গিয়েছে। কিন্তু ডিজিটাল মার্কেটের অবস্থা ভাল। তাই ‘ক্লাউড কম্পিউটিং’অর্থাৎ অনলাইনে সমস্ত জমা ও ব্যবহারের ব্যবস্থাতেই মনোনিবেশ করতে চলেছে তারা।

তাই কর্মী সংখ্যা কমানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ বছর প্রথম তিন মাসের হিসাবে দেখা গেছে, গত এক বছরে ব্যক্তিগতভাবে ‘উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের ব্যবহার কমেছে। তুলনায় ‘ইনটেলিজেন্ট ক্লাউডের` ব্যবহার বেড়েছে। গত বছরের তুলনায় এ বছর ১১ শতাংশ আয় বেড়ে ৬৮০ কোটি মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

হিসেব দেখেই কর্মী সংখ্যা কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সংস্থার প্রধান সত্য নাডেলা। সংস্থারি আধিকারিকদের পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন, ‘বড় মাল্টিন্যাশনাল সংস্থা হোক বা ছোট ও মাঝারি ব্যবসা অথবা কোনোও অলাভজনক সংস্থা, ডিজিটাল রূপান্তরের জন্য বর্তমানে বিশ্বের সব সংস্থাই মাইক্রোসফটের ক্লাউড প্ল্যাটফর্মের ব্যবহার করছে। তাই সেটির প্রচার ও বিক্রিতে জোর দিতে হবে।’

আগামী ২০ জুলাই গত তিন মাসের আয় সংক্রান্ত নথিপত্র প্রকাশ করবে মাইক্রোসফট। তবে তার আগে গোপন সূত্রে বেশ কিছু তথ্য হাতে এসেছে। তাতে দেখা গেছে, গত এক বছরে মাইক্রোসফট অফিস কমার্শিয়াল পণ্য ও ক্লাউড পরিষেবা থেকে আয়ের পরিমাণ মোট ৭ শতাংশ বেড়েছে। মাইক্রোসফ্ট কনজুউমার পণ্য এবং ক্লাউড পরিষেবার আয়ের পরিমাণ যৌথভাবে ১৫ শতাংশ বেড়েছে।

মাইক্রোসফট অফিস ৩৬৫ গ্রাহকের সংখ্যা ২ কোটি ৬২ লক্ষ হয়েছে। তবে অ্যামাজন এবং গুগল মাক্রোসফটের ক্লাউড প্ল্যাটফর্ম ‘অ্যাজিওরকে’ টক্কর দিচ্ছে। ইতোমধ্যে তার ফল ভুগতে হয়েছে মাইক্রোসফটকে। ২০১৪ সালের অক্টোবর মাসে নিজেদের নাম ও লোগো দিয়ে নোকিয়ার লুমিয়া স্মার্টফোন চালুর কথা ঘোষণা করে মাক্রোসফট। কিন্তু সেই পদক্ষেপ সফল হয়নি। যার জেরে ওয়াশিংটনের রেডমন্ডের শাখা থেকে ১৮০০ কর্মীকে ছাঁটাই করা হয়েছিল।

Comments

comments

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top