কোরীয় উপদ্বীপে যুক্তরাষ্ট্র ও দ. কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা

us-s-korea20170705120516.jpg

উত্তর কোরিয়ার আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষার জবাবে যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সেনাবাহিনী ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে। কোরীয় দ্বীপে তীব্র উত্তেজনার মাঝে মঙ্গলবার দক্ষিণ কোরিয়ার সমুদ্র সীমানায় ওই ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে সিউল ও ওয়াশিংটন।

বার্তাসংস্থা এপি বলছে, সিউলে মার্কিন সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা এ তথ্য জানিয়েছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অষ্টম সেনাবহর বলছে, দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক শক্তির যৌথ প্রদর্শনের লক্ষ্যে ওই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানো হয়েছে। উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার জবাবে কোরীয় উপদ্বীপে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়া থেকে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার মার্কিন কর্মকর্তারা নিশ্চিত করে জানান, উত্তর কোরিয়া প্রথমবারের মতো আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে। উত্তরের এই ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষায় ওয়াশিংটন ও সিউলের মধ্যে কার্যত ভীতি দেখা দিয়েছে।

পিয়ংইয়ংয়ের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের জন্য এটি নতুন হুমকি।

উল্লেখ্য, উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনের নির্দেশে মঙ্গলবার স্থানীয় সময় ৯টা ৪০মিনিটে আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র হওয়াসং-১৪’র সফল পরীক্ষা চালায় পিয়ংইয়ং। মাত্র ৩৯ মিনিটে ৯৩৩ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে জাপানের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের জলসীমায় গিয়ে পড়ে উত্তর কোরিয়ার এই ক্ষেপণাস্ত্র।

ক্ষেপণাস্ত্রটি ২ হাজার ৮০২ কিলোমিটার উচ্চতায় উঠে। অতীতে উত্তর কোরিয়ার কোনো ক্ষেপণাস্ত্রই এত উচ্চতায় উঠেনি। ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষার পর মঙ্গলবার সকালে এক বিবৃতিতে উত্তর কোরিয়া জানায়, বিশ্বের যে কোনো স্থানে আঘাত হানার মতো যথেষ্ঠ ক্ষেপণাস্ত্র সক্ষমতা রয়েছে পিয়ংইয়ংয়ের।

এসআইএস/পিআর

Comments

comments

Leave a Reply

Top